সার্চ ইঞ্জিন অপটাইমাইজেশনের কিছু পরিবর্তন: Google panda & Penguin


thumpanda সার্চ ইঞ্জিন অপটাইমাইজেশনের কিছু পরিবর্তন: Google panda & Penguinওয়েব সাইটের র‌্যাংক বৃদ্ধির জন্য যারা এসইও করেন তাদের সর্বদা সার্চ ইঞ্জিন সমূহের আপডেটেশনের সাথে নিজেকেও আপডেট রাখতে হয়। বিশেষ করে প্রধান সার্চ ইঞ্জিন গুগলের আপডেট ফিচারসমূহ বিশেষ গুরুত্বের সাথেই বিবেচনা করা উচিৎ।  সম্প্রতি গুগল তার সার্চ ইঞ্জিন অপটাইমাইজেশনের ক্ষেত্রে কিছু পরিবর্তন এনেছে, এর মধ্যে রয়েছে গুগল পান্ডা ও পেঙ্গুইন। কেও ভাবছেন, গুগল আবার কবে থেকে পান্ডা পোষা শুরু করল! না এটা  কোন চাইনিজ পান্ডা নয়, বড়ং যারা স্প্যামিং করে টপে আসতে চায়, অর্থাৎ বাকাঁ পথে ব্লাক হ্যাট এসইও করে টপে আসতে চায়, তাদেরকে কিক করে ফেলে দিতেই এ পান্ডার আর্বিভাব। এটা গুগলের সার্চ ইঞ্জিনের একটি নুতন ফিচার বা এলগরিদম যা লো কোয়ালিটির সাইটসমূহ যা এতদিন স্প্যামিং এর জোরে টিকে ছিল, তাদেরকে ফেলে দিয়ে হাই কোয়ালিটির সাইটসমূহকে টপে নিয়ে আসা।

অনেকে ভাবছেন, এতদিন এসইওর যা শিখেছি সব অকার্যকর হয়ে যাবে! না, বড়ং আল-হেরা সর্বদাই হোয়াইট হ্যাট এবং হাই কোয়ালিটি ব্যাকলিংকের কথা বলে এসেছে। এটা মূলতঃ গুগলের নতুন আপডেটকেই সমর্থন করে। আসুন প্রথমেই জেনে নেই গুগল পান্ডা কি কি বিষয়কে এসইও এর ক্ষেত্রে  প্রাধান্য দেয়ঃ

  • ১.     ইউনিক ও কোয়ালিটি কনটেন্ট
  • ২.     কোয়ালিটি ব্যাকলিংক
  • ৩.     বাউন্স রেট
  • ৪.     ডোমেইনের বয়স
  • ৫.     সাইট স্পিড

মোটকথা, এখন আর কোন ফাক-ফোকর নেই, অর্থাৎ, লো কোয়ালিটি কপি পেস্ট কনটেন্ট, স্প্যাম ব্যাকলিংক আর ব্ল্যাক হ্যাট এসইও দিয়ে কখনোই টপ র‌্যাংকে থাকা সম্ভব না। নিচে গুগল পান্ডা ও পেঙ্গুইনের আলোকে সার্চ ইঞ্জিনের টপে থাকা, তথা সাইটের র‌্যাংকিং বৃদ্ধির জন্য কতিপয় গাইডলাইন প্রদত্ত হল।

seo 899x719 সার্চ ইঞ্জিন অপটাইমাইজেশনের কিছু পরিবর্তন: Google panda & Penguin

  • ১.    ওয়েব সাইটের সব কনটেন্ট যেন ইউনিক ও ফ্রেশ হয়। কোন ডুপ্লিকেট, লো কোয়ালিটির তথ্য থাকলে তা সরিয়ে ফেলুন।
  • ২.    সাইটের স্ট্রাকচার যেন এসইও উপযোগী হয়।
  • ৩.    নুতন আপডেটে গুগল সোস্যাল মিডিয়া ইন্টারঅ্যাকশনকে খুব গুরুত্ব দিয়েছে, অর্থাৎ, বিভিন্ন সোস্যাল মিডিয়া সাইট  যেমন, Facebook, Twitter, Google Plus  ইত্যাদির সাথে

আপনার সাইটের সরাসরি সম্পর্ক থাকে। এজন্য, সাইটের প্রতিটি পেজ, পোস্টে ফেসবুক লাইক, শেয়ার, টুইটার ফলোয়ার, গুগল প্লাস বাটন ইন্ট্রিগেট করা, যাতে প্রচুর পরিমানে লাইক, ফলোয়ার বৃদ্ধি পায়। সাইট বা পোষ্টকে টপে আনতে এটা খুব কার্যকর ভুমিকা রাখবে। এছারা, এসব সামাজিক যোগাযোগ সাইট থেকে প্রচুর ভিজিটরও পাবেন।

  • ৪.    সাইটের ব্রোকেন লিংকগুলো চেক করা, কোন ব্রোকেন লিংক থাকলে তা ঠিক করা।
  • ৫.    হাই কোয়ালিটি ন্যাচারাল ব্যাকলিংক তৈরিতে গুরুত্ব দিতে হবে। এর জন্য, রিলেটেড ব্লগে কমেন্টস করে, ফোরাম সিগনেচার/প্রোফাইল ও কমেন্টস এর মাধ্যমে, সোস্যাল বুকমার্কিং, ইয়াহু

অ্যানসার ইত্যাদি হাই PR সাইটে ব্যাকলিংক দিতে হবে। এক্ষেত্রে অবশ্যই মনে রাখতে হবে এসব ব্যাকলিংক যেন স্প্যামিং ব্যাকলিংক হিসাবে বিবেচিত না হয়। এজন্য, এসব সাইটসমূহের নিয়ম কানুন বুঝে, একই সাইটে প্রতিদিন না দিয়ে ২ দিন পর পর ঘুরিয়ে ফিরিয়ে ব্যাকলিংক দিতে হবে। ব্যাকলিংক দেয়ার ক্ষেত্রে সম্ভব হলে আপনার কীওয়ার্ড দিয়ে অ্যাংকর টেক্সট দিতে হবে।

Seo optimization 899x769 সার্চ ইঞ্জিন অপটাইমাইজেশনের কিছু পরিবর্তন: Google panda & Penguin

  • ৬.    নতুন আপডেটে গেষ্ট পোষ্টের মাধ্যমে ব্যাকলিংক দেওয়াকে গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। রিলেটেড সাইট খুঁজে বের করে যেসব সাইটে গেষ্ট পোষ্ট দেওয়ার সুযোগ আছে, সেখানে মানসন্মত আর্টিক্যাল লিখে ব্যাকলিংক দিতে হবে।
  • ৭.    এছারা, সাইটের মানসন্মত হোস্টিং, সাইটের স্পিড, বাউন্স রেট ইত্যাদি বিষয়গুলোর প্রতিও নজর দিতে হবে।

আশা করি উপরোক্ত গাইডলাইন ফলো করে প্রতিদিন কিছু সময় আপনার সাইটের জন্য কাজ করেন তবে দ্রুত আপনার সাইট র‌্যাংকে চলে আসবে, ভিজিটরদের সমাগম বৃদ্ধি পাবে, আপনার সাইট হবে অনলাইনে আয়ের একটি বহুমূখী সোর্স। মনে রাখতে হবে, আপনার সাইটে যেন ভিজিটরদের কাঙ্খিত খোরাক থাকে।

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s